যুক্তরাষ্ট্র আ’লীগের উল্লাস : যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির বিক্ষোভ

0
32

খালেদার কারাদন্ডের রায়ে সিটিতে তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়া 

 

নিউইয়র্ক : বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাদন্ডের রায় প্রকাশ হয় বৃহস্পতিবার মধ্যরাত ৩টায়। টিভিতে সরাসরি সম্প্রচারিত সংবাদ প্রচারের পর নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে ভোর রাত সাড়ে ৩টা যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও অংগ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা একদিনে আনন্দ-উল্লাস করেছেন এবং আরেকদিকে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ও অংগ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ করেছে। উল্লাস ও শ্লোগানের চিৎকারে মধ্যরাতের এই ঘটনায় জ্যাকসন হাইটসের এলাকাবাসীরা অনেকটা হতভম্ব হয়ে পড়েন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া এবং তার পুত্র তারেক রহমানসহ কয়েকজনকে কারাদন্ড প্রদানের পর বিজয়োল্লাস করেন আওয়ামী পরিবারের নেতা-কর্মীরা। অবশ্য সন্ধ্যা থেকেই তারা জ্যাকসন হাইটসের ৭৩ স্ট্রীটের খাবার বাড়ী ও পালকি পার্টি সেন্টারের আশপাশে অবস্থান নেয়। স্যাটেলাইট টিভির মাধ্যমে রায় শোনার পরই উল্লাসে ফেটে পড়েন।

  

এ সময় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আইনের শাসনের ক্ষেত্রে বর্তমান সরকারের দৃঢ় অঙ্গিকারের আরেকটি পর্ব অতিবাহিত হলো। এ রায়ের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থার নিরপেক্ষতারই স্পষ্ট প্রকাশ ঘটলো। কেউই আইনের উর্দ্ধে নন-অপরাধ করে কেউই রেহাই পাবে না-বর্তমান সরকারের সে নীতির প্রতি প্রবাসীদের সমর্থন রয়েছে। এই বিজয়োল্লাসে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, মহানগর আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা ছিলেন।

 জ্যাকসন হাইটসের ৭৩ স্ট্রীটের হাটবাজার পার্টি হলে সন্ধ্যা থেকেই বিএনপির বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মী জড়ো হন। রায়ের পরই তারা বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। তারা ক্ষুব্ধচিত্তে এই রায় প্রত্যাখান করেন। এ সময় যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ স¤্রাট বলেন, ‘রাজনৈতিক প্রতিহিংসাপরায়নভাবে দেয়া এ রায় কখনোই প্রবাসীরা মেনে নেবে না।

 সাবেক আন্তর্জাতিক সম্পাদক গিয়াস আহমেদ বলেন, আমরা জাতিসংঘের সামনে, হোয়াইট হাউজ এবং স্টেট ডিপার্টমেন্টের সামনে মানববন্ধনসহ কংগ্রেসের সকল সদস্যকে অবহিত করবো রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার এমন নগ্ন আচরণ সম্পর্কে।

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন বলেন, সরকারের স্বৈরাচারী মনোভাবে ধৈর্যের বাধ ভেঙ্গে যাচ্ছে। প্রবাস থেকেই দুর্বার আন্দোলন করতে হবে।

 

 

দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়াকে সাজা দেওয়ার  চক্রান্তের প্রতিবাদ

জাতিসংঘের সামনে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা ও এ মামলায় রায় ঘোষণার চক্রান্তের প্রতিবাদে ম্যানহাটনে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা। সোমবার দুপুরে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির বিভিন্ন গ্রæপের নেতারা একত্রিত হয়ে ‘আমার নেত্রী আমার মা, বন্দী হতে দেবো না শ্লোগানে মুখরিত করে তোলেন জাতিসংঘ প্রাঙ্গন।

  

বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তরা বলেন, বাংলাদেশ এখন ভয়-ভীতির দেশে পরিণত হয়েছে। খুন গুম আর গ্রেপ্তার আতঙ্কে পালিয়ে বেরাচ্ছেন বিএনপির নেতা-কর্মীরা। এ অবস্থায় সরকার বিএনপিকে ছাড়াই নির্বাচন করার জন্য বিএনপির চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী ও সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে মিথ্যা ও সাজানো মামলায় সাজা দেওয়ার চক্রান্ত করছেন। খালেদা জিয়ার খালেদা জিয়ার গায়ে যদি একটা ফুলের আঁচড়ও পড়ে, বাংলাদেশের মানুষের মত যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয়তাবাদী শক্তির পক্ষের প্রবাসীরাও গর্জে উঠবে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে কঠোর আন্দোলন করার হুশিয়ারি দেন বিএনপি নেতারা।

বক্তারা বলেন, উন্নয়নের নামে গণতন্ত্র ও মানবাধিকারকে বলি দেওয়া হচ্ছে। জনগণ ভোটাধিকার হারিয়েছে। বাংলাদেশ একনায়কতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। এই সরকারের দেশ পরিচালনার কোনো এখতিয়ার নেই। দেশে মানবাধিকারের ব্যাপক লঙ্ঘন ঘটছে। গুম, বিচারবহির্ভূত ও নিরাপত্তা হেফাজতে হত্যার সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। বিরোধী দল বা ভিন্ন মতাবলম্বীদের জন্য এ দেশে কোনো সুযোগ নেই। বিরোধী নেতারা গণগ্রেপ্তার এবং মিথ্যা মামলার শিকার হচ্ছেন।

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ডা. মুজিবুর রহমান মুজুমদার,সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ সম্রাট, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লু, সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি গিয়াস আহমেদ ও অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন, কামাল সাইদ মোহন, সাবেক সহ-সভাপতি শামসুল ইসলাম মজনু, নিয়াজ আহমেদ জুয়েল, মঞ্জুর চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন, সাবেক সহ সভাপতি আলহাজ্ব বাবর উদ্দিন, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসিম ভুইয়া,সাবেক যুগ্ম-আহবায়ক মিজানুর রহমান ভুঁইয়া মিল্টন, আব্বাস  উদ্দিন দুলাল, সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম, হেলাল, সভাপতি সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আক্তার হোসেন বাদল, বাকের আজাদ, গোলাম ফারুক শাহীন, ফিরোজ আহমেদ, বিএনপি নেতা সেলিম রেজা,, সাইদুল হক, কাজী আজম, আব্দুস সবুর, মার্শাল মুরাদ, ডা. তারেক জামান, এবাদ চৌধুরী, জাফর তালুকদার, আবুল বাসার, ফয়সাল,  যুবদলের সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক কেন্দ্রীয় যুবদল এম এ বাতিন, যুবদল সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ আহমদ, আলহাজ্ব মাহফুজুল মওলা নান্নু, নিয়াজ আহমেদ জুয়েল,আহাদ, আমানত হোসেন আমান, আতিকুল হক আহাদ, শেখ হায়দার আলী, রেজাউল আজাদ ভূঁইয়া, আবু তাহের, সোহরাব হোসেন, আহবাব হোসেন খোকন, ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম, ব্রæকলিন বিএনপি সভাপতি আনোয়ার হোসেন,সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর সোহওয়ার্দী, ভিপি জসিম, যুবদল নেতা খলকুর রহমান, জুবায়ের শাহীন,কাওসার  আহমেদ,মঞ্জুর আহমেদ চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন,সুয়েব আহমেদ, সাইফুর খান হারুন, মোঃ ওমর ফারুক, নাসির উদ্দিন, আনোয়ার হোসেন, জিয়া পরিষদের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. জাহিদ দেওয়ান শামীম প্রমুখ।

এই বিক্ষোভে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ফোরাম ইউত্রসত্র ইনক এর নেতৃবৃন্দও অংশ গ্রহন করেছেন। প্রতিবাদ সমাবেশে অংশ গ্রহনকারী ফোরাম নেতৃবৃন্দরা হলেন, ফোরাম সভাপতি, মৌ মোঃ ওমর ফারুক.সাধারন সম্পাদক, মোঃ নাসির উদ্দিন,সাবেক সভাপতি ড. নুরুল আমিন পলাশ,সাবেক সাধারন সম্পাদক ছাইদুর খান ডিউক,সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ফারুক হোসেন মজুমদার, সাবেক সভাপতি, নাছিম আহমেদ.সাবেক সাধারন সম্পাদক মাহবুবুর রহমান মুকুল, ফোরাম উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী,ফোরামের সিনিয়র সহসভাপতি শেখ হায়দার আলী,সিনিয়র জয়েন্ট সেক্রেটারি মোতাহার হোসেন,জয়েন্ট সেক্রেটারি শাহ আলম, কোষাধ্যক্ষ মাহাবুবুল আলম, প্রচার সম্পাদক মোজাম্মেল হক ও ফোরাম ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সালজার খান হৃদ।

এছাড়াও কোকো স্মৃতি সংসদ, বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরাও উক্ত সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন।

 

 

নিউইয়র্কে আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ সমাবেশ : সেনা বাহিনী মোতায়েনের আহŸান

 জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি-জামায়াতের অরাজকতা, বিশ্ঙ্খৃলা ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির হুমকির প্রতিবাদে নিউইয়র্কে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। এই রায়কে কেন্দ্র করে কেউ যাতে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে না পারে সে জন্য প্রয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর পাশাপশি সেনা বাহিনী মোতায়েনেরও আহŸান জানান হয় সমাবেশ থেকে।

 

নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে খাবার বাড়ি চায়নিজ পার্টি হলে গত ৬ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আওয়ামীলীগ, নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগ, নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগ, যুক্তরাষ্ট্র মহিলা আওয়ামী লীগ, যুক্তরাষ্ট্র যুব লীগ, যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ ও ছাত্রলীগের ব্যানারে আয়োজিত হয়েছে এ সমাবেশ। সমাবেশের আগে নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে ডাইভার্সিটি প্লাজায় বিরাট র‌্যালির আয়োজক করে সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।- ইউএসএনিউজঅনলাইন.কম

সমাবেশে বক্তারা বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলাটি দীর্ঘ্য ১১ বছর কালক্ষেপন করে ধামাচাঁপা দিতে চেয়েছিল বিএনপি। সেটা ব্যর্থ হয়ে এখন আদালতের অপেক্ষমান রায়ে দন্ডিত হওয়ার আশঙ্কায় বিএনপি-জামায়াত দেশব্যাপি অরাজকতা, বিশ্ঙ্খৃলা ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির পাঁয়তারা করছে। বক্তারা রায় ঘোষণার দিন বিএনপি-জামায়াতের অগ্নিসন্ত্রাস-নাশকতা ও বিশৃঙ্খলা তৈরির যে কোন অপচেষ্টা কঠোর হাতে দমনের জন্য সরকারের প্রতি আহŸান জানান।

বক্তারা বলেন, প্রবাসেও বিএনপি-জামায়াতের যে কোন ষড়যন্ত্র রুখে দিতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আওয়ামীলীগ নেতা-কর্মীরা। রায় ঘোষণার দিন দলের নেতা-কর্মীরা জ্যাকসন হাইটসহ বাঙালী অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে অবস্থান নেবে।

নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন আজমল ও মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুর রহমান চৌধুরীর পরিচালনায় এবং যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের অন্যতম উপদেষ্টা ডা. মাসুদুল হাসানের সভাপতিত্বে এ সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের অন্যতম উপদেষ্টা তোফায়েল চৌধুরী, জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সমন্বয়কারী, নর্থ আমেরিকা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা, সাবেক ছাত্র নেতা ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের জনসংযোগ সম্পাদক কাজী কয়েস, আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. শাহ মোঃ বখতিয়ার আলী, মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন, সাবেক যুবলীগ নেতা গোলাম রব্বানী, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য শরীফ কামরুল আলম হীরা, রেজাউল করিম চৌধুরী, মোঃ কায়কোবাদ খান, আশরাফ মাশুক, আবদুস সহীদ দুদু, হোসেন সোহেল রানা, নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুর রহমান, সহ সভাপতি সাইকুল ইসলাম ও শাহীন ইবনে দিলওয়ার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. শিমুল হাসান, ওয়ালী হোসেন, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের আহŸায়ক তারিকুল হায়দার চৌধুরী ও সদস্য সচিব বাহার খন্দকার সবুজ, যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি দুরুদ মিয়া রনেল, সাধারণ সম্পাদক সুবল দেবনাথ, সহ সাধারণ সম্পাদক নাফিউর রহমান তুরান, যুক্তরাষ্ট্র শ্রমিক লীগের সহ সভাপতি মঞ্জুর চৌধুরী, ইলিয়ার রহমান, সাধারণ সম্পাদক জুয়েল আহমদ, মাসুদ মোল্লা, জেড এ জয়, মোঃ লিটু গাজী, সৈয়দ সিদ্দিকুল হাসান, এডভোকেট নিজাম, এডভোকেট জহির, এডভোকেট লুৎফর রহমান, রুমানা আক্তার, মিজানুর রহমান, আহমেদ মোস্তফা পারভেজ, নাছির উদ্দিন চৌধুরী, আকবর হোসেন স্বপন, গনেস কিত্তনিয়া, এমাদ উদ্দিন, ইমন হক কোবান, মো. আলামিন, মো. ওয়াহেদ, গোলাম রহমান, ইঞ্জিনিয়ার হাসান, একেএম জাহাঙ্গীর, কাজী আহসান, মো. নাদের, রমিজ দেবনাথ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক দলীয় নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে পবিত্র কুরআন ও পবিত্র গীতা থেকে পাঠের পর সকল শহীদদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

সমাবেশে বক্তারা ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বানচালের নামে এবং পরবর্তীতে সরকার উৎখাতের কর্মসূচির নামে বিএনপি-জামায়াত জোটের ভয়াল অগ্নিসন্ত্রাস, নাশকতা, পেট্টোল বোমা মেরে শত শত মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা ও দেশের সম্পদ বিনষ্টের অশুভ তৎপরতার পুনরাবৃত্তি রোধে সরকারকে কঠোর অবস্থানে থাকার আহŸান জানান।

উল্লেখ্য, ৮ ফেব্রæয়ারি বহুল আলোচিত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা দিন ধার্য রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here