ট্রাম্পের রাশিয়া কানেকশন প্রকাশ্যে দ্ব›েদ্ব রিপাবলিকান ও এফবি আই

0
118

সান্দ্রা নন্দিনী: ডেমোক্রেট ও গোয়েন্দা সংস্থা এফবি আইয়ের আপত্তি ছিল। কিন্তু কিছুতেই কান দেন নি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি এফবি আইয়ের একটি গোপন নথি প্রকাশ করে দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ সংক্রান্ত ওই দলিলটি। এই দলিল বা নথিটির ওপর ভিত্তি করে ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার দল রিপাবলিকানরা বলছেন, রাশিয়া কানেকশন নিয়ে সরকারকে বিপদে ফেলতেই নিজেদের নজরদারি বিষয়ক কর্তৃত্ব লঙ্ঘন করেছে এফবি আই। বলা হয়েছে, ওই নজরদারি ছিল পক্ষপাতমুলক।
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শুক্রবার নতুন করে এফবি আই ও রিপাবলিকানদের মধ্যে দ্ব›দ্ব উসকে দিয়েছেন ওই মেমো প্রকাশ করে। এফবি আই চেয়েছিল এই মেমোটি ক্লাসিফায়েড হিসেবেই থাক। কিন্তু তা না শুনে চার পৃষ্ঠার ওই মেমোটি প্রকাশ করে দিলেন ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, তার বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্ব করা হয়েছে, এমন লজ্জাজনক বিষয়বস্তু আছে এই মেমোতে। তাই রিপাবলিকানদের প্রতিনিধি পরিষদের গোয়েন্দা বিষয়ক কমিটি এই এটা প্রকাশ করেছে।
উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়া হস্তক্ষেপ করেছিল বলে অভিযোগ আছে। তা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো রিপোর্ট দিয়েছে। আইন মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ করা স্পেশাল কাউন্সেল রবার্ট মুয়েলার এখন তদন্ত করছেন। তাকে এরই মধ্যে বরখাস্ত করতে চেয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এসব খবরে ও তার তদন্ত নিয়ে এমনিতেই ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেটদের মধ্যে অব্যাহতভাবে দ্ব›দ্ব লেগেই আছে। তার ওপর নতুন করে প্রকাশ করে দেয়া ওই মেমোটি এখন আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই মেমোটির নিন্দা জানিয়েছেন ডেমোক্রেটরা। তারা বলেছেন, এই মেমো প্রকাশ করছে রবার্ট মুয়েলারের তদন্তকে খর্ব করা হবে। ভুল পথে পরিচালিত করা হবে এবং এটা প্রকাশ করা ঠিক হবে না। তারা আরো মনে করেন, এই মেমোর ইস্যুকে ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রের ডেপুটি এটর্নি জেনারেল রড রোজেনস্টেইনকে বরখাস্ত করার যুক্তি দেখাতে পারেন ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠজনরা। এই রোজেনস্টেইনই স্পেশাল কাউন্সেল হিসেবে রবার্ট মুয়েলারকে সামনে নিয়ে এসেছিলেন।
ট্রাম্পের সঙ্গে রিপাবলিকানদের ভিন্নমত
বিতর্কিত নথি-বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে রোববার ভিন্নমত পোষণ করেছেন বেশকয়েকজন রিপাবলিকান আইনপ্রণেতা। গতসপ্তাহে হাউজ ইন্টেলিজেন্স কমিটির মাধ্যমে নথি প্রকাশিত হওয়ার বিষয়ে ট্রাম্পের বিবৃতির সঙ্গে নিজেদের মতপার্থক্য তুলে ধরেন তারা। প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার সম্পৃক্ততা তদন্তে গঠিত যুক্তরাষ্ট্রের হাউজ ইন্টেলিজেন্স কমিটি বরাবরই ট্রাম্পের দিকে অভিযোগের আঙ্গুল তুলে আসছে।
ফ্লোরিডার পামবিচের রিসোর্ট থেকে গত শনিবার করা এক টুইটবার্তায় ট্রাম্প বলেন, স্পেশাল কাউন্সিল প্রধান রবার্ট মুলারের তদন্ত একটি ‘শুভঙ্করের ফাঁকি’ এবং ‘অত্যন্ত অসম্মানজনক’। এছাড়া তিনি বলেন, এই নথি সম্পূর্ণভাবে তার শুরু থেকে দিয়ে আসা বক্তব্যকে সমর্থন করে।
তবে, কয়েকজন রিপাবলিকান আইনপ্রণেতা মেমোর বিষয়ে ট্রাম্পের বক্তব্যে ভিন্নমত পোষণ করেছেন। আর এদেরমধ্যে ট্রে গোদি অন্যতম, যিনি একইসাথে তদন্ত কমিটির সদস্য এবং চারপৃষ্ঠার মেমো লেখকদের একজন।
টিভি চ্যানেল সিবিএস’র অনুষ্ঠান ‘ফেস দ্য নেশন’এ অংশ নিয়ে গোদি বলেন, তিনি বিশ্বাস করেন যে রিপাবলিকান নথিটির মাধ্যমে আজ এটা স্পষ্ট যে এফবি আই’র তদন্ত সম্পূর্ণ খুঁতমুক্ত ছিল না। তবে তিনি এও মনে করেন যে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার সম্পৃক্ততার অবশ্যই একটি সুষ্ঠু তদন্তের প্রয়োজন ছিল।
তিনি আরও বলেন, ‘আজ আমি জনসম্মুখেই বলছি, মুলারের ওপর আমার ১শ’ ভাগ আস্থা রয়েছে। তবে পাশাপাশি সবাইকে স্বীকার করতেই হবে যে একজন নাগরিকের ওপর নজরদারিতে এতটা খুঁত কোনভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।’ রয়টার্স

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here