যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির ৩২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন 

0
104

 

নিউইয়র্ক: গত ১ জানুয়ারী সোমবার সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের ইত্যাদি পার্টি হলে জাতীয় পার্টির ৩২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান চৌধুরী। প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় পার্টি যুক্তরাষ্ট্র শাখার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও পার্টির চেয়ারম্যানের বর্হি:বিশ্ব উপদেষ্টা গোলাম মেরাজ। সভা যৌথভাবে পরিচালনা করেন জাতীয় পার্টি যুক্তরাষ্ট্র শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ওসমান চৌধুরী ও যুক্তরাষ্ট্র যুব সংহতির সাধারণ সম্পাদক এ,বি,এম খায়রুল আলম।

পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত এবং জাতীয় ও দলীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে সভার কার্যক্রম শুরু হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য ও যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির প্রধান সমন্বয়কারী আব্দুর নূর বড় ভ‚ইঁয়া, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য ও যুক্তরাষ্ট্র শাখার সিনিয়র সহ সভাপতি জসিম উদ্দিন চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির উপদেষ্টা মুক্তিযোদ্ধা ইসমাঈল খান আনসারী, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির সহ সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সদস্য মাহবুুবুর রহমান অনিক, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য আলতাফ হোসেন, জাতীয় পার্টির সিলেট মহানগরের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড: আব্দুল হাই কাইয়ূম, যুক্তরাষ্ট্র শাখার সহ সভাপতি ছব্বির লস্কর, তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির সহ সাধারণ স¤পাদক জাফর মিতা, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় মহিলা পার্টির সভানেত্রী সুজাতা সরকার, যুক্তরাষ্ট্র যুব সংহতির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সদস্য আব্দুল কাদের লিপু, যুব সংহতির কেন্দ্রীয় সদস্য শাহজাহান সাজু, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির আহবায়ক জহিরুল করিম, সদস্য সচিব উত্তম কুমার ডাকুয়া, যুব সংহতি নেতা মো: শাহজাহান, জামাল উদ্দিন, শক্তিদাস গুপ্তা, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় মহিলা পার্টির সাধারণ সম্পাদিকা শামসুন্নাহার, সাংস্কৃতিক পার্টির মির্জা আজম, মেহেদী হাসান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে জাতীয় পার্টির জন্মলগ্ন থেকে বর্তমান প্রেক্ষাপট নিয়ে বিশদ আলোচনা করা হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে একমাত্র জাতীয় পার্টি সত্যিকারার্থে গণতন্ত্র ও সংবিধানকে শ্রদ্ধা করে সংসদ বর্জন না করে সংসদীয় গণতন্ত্রের প্রতি প্রতোক্ষ ও পরোক্ষ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছে। জাতীয় পার্টিই প্রতিহিংসা পরায়ণ না হয়ে স্বেচ্ছায় সংবিধানকে রক্ষা করে পদত্যাগ করেছিল। আর সে সুবাদেই পরবর্তীতে বৃহৎ দুটি রাজনৈতিক দলের পক্ষে ক্ষমতার স্বাদ গ্রহন করতে সক্ষম হয়েছিল।

তারা বলেন, প্রেসিডেন্ট এরশাদের দীর্ঘ নয় বছরের শাসন আমলে ছিল না কোন প্রতিহিংসার রাজনীতি, ছিল না কোন বিডিআর হত্যার মতো কিংবা ২১ আগষ্টের মতো গ্রেনেড হত্যার মতো বড় ধরনের হত্যাকান্ড কিংবা ঘটেনি কোন দিন লগি বৈঠা কিংবা প্রেট্রোল দিয়ে বোমা মেরে মানুষ হত্যার নোংরা রাজনীতি।

তারা আরো বলেন, এরশাদের আমলে ঘটেনি শেয়ার ধসের ঘটনা, ছিল না সেদিন রক্ষিত ব্যাংকের দেশীয় অর্থ বিদেশে পাচারের সুযোগ। ছিল না কোন জঙ্গি তৎপরতা,  মাদক কিংবা ইয়াবা বাণিজ্য, ছিল না লাগামহীন দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি। এরশাদের সময় সকল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচনমুখী ছিল। আজ কৌশলে কোমলমতি ছাত্র অনিশ্চিয়তার দিকে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। পরিস্থিতি ভয়াবহ তার উপরে বর্তমান রোহিঙ্গা তৎপরতা। এহেন পরিস্থিতিতে দেশ বাঁচাতে হলে নয় বছরের সফল যোগ্য রাষ্ট্র নায়ক হিসেবে এরশাদের পক্ষে জনমত তৈরী করা প্রয়োজন। আমরা মনে করি, জাতীয় পার্টির আমল ছিল স্বর্ণোজ্জ্বল সময়। যে কারণে আজও পুরো বাংলাদেশের মানুষ এরশাদকে স্বরণ করে পূনরায় জাতীয় পার্টির সরকার দেখতে চায়। যার প্রমাণ রংপুরের সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। তাই দলমত নির্বিশেষে জাতীয় পার্টির পতাকা তলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এরশাদের হাতকে শক্তিশালী করার উদাত্ত আহবান জানান।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির বর্তমান বিবাদমান প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে পার্টির মাননীয় চেয়ারম্যান, মহাসচিব ও বর্তমান সভাপতির সাথে আলাপ আলোচনা করে অবিলম্বে সম্মেলনের মাধ্যমে আশু সমাধানের প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির উদ্যোগে পরে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। পরিশেষে সভাপতি রাতের খাবারের আপ্যায়ন করে সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here