প্রস্তুত আ’লীগ ও বিএনপি : ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা উত্তর সিটির ভোট 

0
99

 

সালাহউদ্দিন আহমেদ: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন কমিশনের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগামী মঙ্গলবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন উপনির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে তফসিল ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে কমিশন সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়।

এ নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও তাদের প্রধান প্রতিদ্বন্ধি বিএনপি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রস্তুতি প্রায় চূড়ান্ত করেছে। বিভিন্ন সুত্র অনুযায়ী তাদের নিজ নিজ প্রার্থীও ইতিমধ্যেই চূড়ান্ত করা হয়েছে।

পযৃবেক্ষক বলছেন জাতীয় নির্বাচন প্রায় সমাগত। সে নিব্যাচন নিয়ে প্রধান দুই দলের মধ্যে নানা প্রশ্নে দ্ব›দ্ব চলছে। এসব অমীমাংসিত বিষয় সামনে রেখে বাংলাদেশের প্রধান দুটি দলের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

জাতীয় নির্বাচনের আগে রাজধানীতে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করা নির্বাচন কমিশন ও সরকারের গ্রহণযোগ্যতা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রভাব পড়তে বাধ্য। অন্যদিকে এই নির্বাচনের ফলাফর জাতীয় নির্বাচনের ওপর পড়বে বলেও অনেকে মনে করেন। প্রধান দুই পৃতিপক্ষের মধ্যে যে দল হেরে যাবে জাতীয় নির্বাচনে তার দুর্বলতার কারণ হবে।

প্রধানত ক্ষমতাসী আওয়ামী লীগের জন্য এই নির্বাচন বড় সমস্যা হয়ে দাড়াতে পারে। নির্বাচন সুষ্ঠৃু না হলে জাতীয় নির্বাচনের বিষয় নিয়ে প্রশ্ন উঠবে অন্যদিকে তাদের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপি নির্বাচনে বিজয়ী হলে সরকারের ওপর পাচ সৃষ্টির জন্য এই বিজয়কে কাজে লাগাবে। নির্বাচনের আলোচনায় থাকা সিটিগুলোতে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিএনপির প্রার্থীরাই জয়লাভ করবে। এসব নির্বাচনে জয়লাভ করলে নির্দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের দাবি আদায় আরো সহজ হতে পারে। ফলে এটি উপনির্বাচন হলেও রাজধানীতে আসন্ন এ নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ ও বার্তাবহ।

ঢাকায় মূলত অগ্নিপরীক্ষার মুখোমুখি হচ্ছে নির্বাচন কমিশন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। জাতীয় নির্বাচনের আগে ঢাকা উত্তরের মেয়র পদের নির্বাচনকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন সরকার ও বিরোধীপক্ষের নীতিনির্ধারকরা।

বিভিন্ন সুত্র বলছে, নির্বাচনে দুই প্রধান আওয়ামী লীগ ও বিএনপি এরইমধ্যে তাদের প্রার্থী প্রায় চূড়ান্ত করে ফেলেছে। আওয়ামী লীগের গ্রিন সিগন্যাল পেয়ে প্রচারণায় নেমে পড়েছেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম। আতিকুলও বিজিএমইএ’র সভাপতি ছিলেন ২০১৩-১৪ মেয়াদে। এখন তিনি পোশাক খাত সংশ্লিষ্ট ‘সেন্টার অফ এক্সেলেন্স ফর বাংলাদেশ অ্যাপারেল ইন্ডাস্ট্রিজ’-সিবাইয়ের সভাপতি। আওয়ামী লীগ থেকে সংকেত পেয়ে ভোটের প্রস্তুতি নেয়ার কথা জানিয়েছেন পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম। তিনি গত শনিবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকও করে এসেছেন। বৈঠক শেষে তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রী তাকে কাজ চালিয়ে যেতে বলেছেন।

আওয়ামী লীগের মতো বিএনপির প্রার্থীও প্রায় চূড়ান্ত। আলোচনায় আরো কিছু নাম থাকলেও শেষ পর্যন্ত তাবিথ আউয়ালই বিএনপি প্রার্থী হতে পারেন। তার ব্যাপারে দলের হাইকমান্ডের ইতিবাচক মনোভাব রয়েছে। বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়ালও ব্যবসায়ী। তার পিতা ব্যবসায়ী নেতা আবদুল আউয়াল মিন্টু বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান। গত নির্বাচনে তাবিথ আউয়ালকে প্রার্থী করে বিএনপি যেমন চমক তৈরি করেছিলো, তেমনি ভোটের ফলেও খারাপ করেননি এ তরুণ। দিনের মধ্যভাগে ভোট থেকে সরে দাঁড়ানো তাবিথ বিপুল ভোট পেয়েছিলেন। অনেক পর্যবেক্ষকই বলেন, সেসময় তার নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত সঠিক ছিলো না।

গত বেশ কয়েকটি স্থানীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ-বিএনপির লড়াই দেখেছে দেশের মানুষ। তবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ভোটের লড়াই নিশ্চিতভাবেই এতে নতুন মাত্রা যোগ করবে। এ লড়াইয়ে কারা বাজিমাত করেন তা দেখতে অনেক দেরি আছে। তবে লড়াই যে জমজমাট হবে তার ইঙ্গিত এখনই পাওয়া যাচ্ছে।

বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, প্রার্থী বাছাইসহ নির্বাচনের কর্মপন্থা ঠিক করতে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি ওয়ার্ডভিত্তিক ৩৬টি কমিটি গঠন করেছে। নির্বাচন নিয়ে জনমত যাচাই করতে নগরব্যাপী জরিপ করবে এই কমিটি। মেয়র পদের জন্য আলোচনায় থাকা প্রার্থীদের মধ্যে কে সবচেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য তা জরিপ করে একটি রিপোর্ট দলের হাইকমান্ডের কাছে পেশ করা হবে।

গত নির্বাচনে প্রার্থী দেয়ার ক্ষেত্রে চমক দেখিয়েছিলো আওয়ামী লীগ। ব্যবসায়ী নেতা ও উপস্থাপক আনিসুল হককে প্রার্থী হিসেবে বেছে নিয়েছিলো দলটি। ওই নির্বাচনে আনিসুল হক ৪ লাখ ৬০ হাজার ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন। নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী বিএনপির তাবিথ আউয়াল পেয়েছিলেন ৩ লাখ ২৫ হাজার ভোট। অবশ্য জালিয়াতির অভিযোগ তুলে ওই দিন দুপুরেই ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছিলেন তাবিথ। গত ৩০শে নভেম্বর লন্ডনে ইন্তেকাল করেন আনিসুল হক। এরপর ৪ঠা ডিসেম্বর মেয়রের পদ শূন্য ঘোষণা করা হয়।

এদিবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে উপ-নির্বাচন এবং দুই সিটির ৩৬ ওয়ার্ডে ২৬ ফেব্রæয়ারি ভোট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। আর ব্রাহ্মণবাড়িয়াা-১ এবং গাইবান্ধা-১ সংসদীয় আসনের উপ-নির্বাচনের জন্য ১৩ মার্চ দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে বৈঠক হয়। বৈঠকে চার নির্বাচন কমিশনার, ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। হেলালুদ্দীন বলেন, ঢাকার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে ৯ জানুয়ারি। আর দুই সংসদীয় আসনে উপ নির্বাচনের বিস্তারিত সময়সূচি ৫ ফেব্রæয়ারি ঘোষণা করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here