যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে পরিবর্তনের গুঞ্জন : কে হচ্ছেন সভাপতি ও সম্পাদক

0
202

প্রবাস রিপোর্ট: সফররত দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালেই যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি গঠন করা হতে পারে বলে জোর গুঞ্জন চলছে। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী পরিবারে এখন ব্যাপক আলোচনা চলছে কে হচ্ছেন সংগঠনের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। কয়েকটি বিশেষ ঘটনার প্রেক্ষিতে গত বুধবার মধ্যরাতে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা দলের কয়েকজন কর্মীকে বলেছেন ৩ থেকে ৬ মাসের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের কর্মীসভা করে নতুন কমিটি গঠন করা হবে। তবে ২৮ সেপ্টেম্বর তার দেশে ফেরার আগেই যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষনা করতে পারেন বলেও দলের মধ্যে আলোচনা হচ্ছে। পরে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে। পাঁচ বছর আগে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটিও একই পদ্ধতি গঠন করা হয়।
বছরাধিককাল আগে থেকেই দলীয় কোন্দলের প্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদটি শুন্য। যুগ্ম সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ এখন ভারপাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সে দায়িত্ব পালন করছেন সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের নির্দেশ অনুযায়ী। শেখ হাসিনার বর্তমান সফরকালে এই কোন্দল কিছুটা বেড়েছে। এই অবস্থায় প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রীর বিভিন্ন কর্মসূচীতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের পারফর্মেন্সে তেমন সন্তোষজনক না হওয়ায়, দলের কয়েকজন নেতার পরামর্শে প্রধানমন্ত্রী নতুন কমিটি গঠনের ইঙ্গিত দেন।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর এই ইঙ্গিতের পর নতুন সভাপতি পদে কে আসছেন তা নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। এর মধ্যে ড. সিদ্দিকুর রহমানই সভাপতি হিসাবে থেকে যাবেন বলে অনেকেই আভাষ দিচ্ছেন। তবে নতুন সভাপতি হিসাবে ড.খন্দকার মনসুর, ড.প্রদীপ রঞ্জন কর, ড. মহসিন আলী, ড. নূরাণ নবী’র নাম দলের নেতা-কর্মীরা আলোচনা করছেন।
তবে দলের একটি সুত্র জানায় নতুন কমিটি আপাতত না করে সাধারণ সম্পাদকসহ কয়েকটি শুণ্য পদ পুরণের নির্দেশনাই সম্ভবত দিতে যাচ্ছেন সভানেত্রী শেখ হাসিনা। এই অবস্থায় সাধারণ সম্পাদক পদে যুগ্ম সম্পাদিকা আইরিন পারভিনের নাম উচ্চারিত হচ্ছে। পাশাপাশি সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ এবং আব্দুর রহিম বাদশা, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের গণসংযোগ সম্পাদক কাজী কয়েস, প্রচার সম্পাদক হাজী এনাম এবং নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকারিয়া চৌধুরীর নামও ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে।
যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগে বরাবরই শক্তিশালী গ্রুপ সিলেটি গ্রুপ। এর আগে সাধারণ সম্পাদক হিসাবে একজন সিলেট অঞ্চলের প্রার্থীরাই দায়িত্ব পালন করেছেন। এজন্যে অনেকেই মনে করছেন নতুন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সিলেটের কাউকে নেয়া হতে পারে। অপরদিকে,সংগঠনের জন্যে নিবেদিতদের অন্যতম এবং সময়, মেধা ও সাংগঠনিক কর্মকান্ডে, যুগ্ম সম্পাদিকা আইরিন পারভিন, প্রচার সম্পাদক হাজী এনাম যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী পরিবারের সাথে শুরু থেকেই জড়িত। মোহাম্মদ ফারুক আহমেদ মূলত তার নিজ জন্মস্থান থেকে দলীয় নমিনেশনেই বেশী আগ্রহী। তবে সেটি যদি নিশ্চিত না হওয়া যায় তাহলে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদেও আগ্রহী বলে অনেকে বলাবলি করছেন। সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশাও বহু পুরনো সংগঠক। একইসাথে তিনি শ্রমিক লীগেরও আন্তর্জাতিক সমন্বয়কারী হিসেবে নানা কর্মকান্ডে বছরজুড়ে নিয়োজিত রেখেছেন। নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকারিয়া চৌধুরীও সাংগঠনিক বিভিন্ন কর্মসূচীতে বরাবরই শক্তিশালী ভূমিকা পালন করছেন। কমান্ডার নূর নবী বাংলাদেশে চলে যাওয়ার পর থেকে তিনি নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। ফলে সাধারণ সম্পাদক পদ পুরুণ করা হলে তাদের মধ্য থেকেই একজনকে বেছে নিতে পারেন।
এ বিষয়ে সর্বশেষ অবস্থা জানতে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের সেলফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here