ভেঙ্গে কি যাচ্ছে চট্টগ্রাম সমিতি ?

0
503

 

প্রবাস রিপোর্ট : প্রবাসের অন্যতম বৃহত্তম আঞ্চলিক সংগঠন চট্টগ্রাম সমিতি দুইভাগে বিভক্ত হয়ে পড়তে যাচ্ছে বলে প্রতিয়মান হচ্ছে। সংগঠনের নির্বাচনের মাধ্যমে একটি কমিটি গঠিত হওয়ার পর একই দিন অনুষ্ঠিত সংগঠনের সাধারণ সভায় কণ্ঠভোটে আরেকটি কমিটি গঠিত হয়েছে।এখন চলছে এক পক্ষ কতৃক আরেক পক্ষের কর্মকর্তাদের বহিস্কার ও পাল্টা বহিস্কার। এর মাঝে মঙ্গণবার ‘জাহাঙ্গীর-বিল্লাহ কমিটির কর্মকর্তারা এবং বৃহস্পতিবার ‘জিয়া -সেলিম’ পরিষদের কর্মকর্তারা ইতিমধ্যে শপথ গ্রহণ করেছেন।

 

তবে এই সংগঠনের নিজস্ব ভবন ও সমিতির নামে রক্ষিত ফান্ড-এর দখল নিয়ে দু’পক্ষ দীর্ঘ-মেয়াদী দ্বন্ধে জড়িয়ে পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে,দুইপক্ষের মাঝে সমঝোতা না হলে এমাসেই হয়তো মামলা করা হবে। পরে মামলার রায়ে কোর্ট যা বলবে সেভাবেই হয়তো নির্ধারিত হবে কোন পরিষদের হাতে থাকবে সংগঠনের নেতৃত্ব।

কয়েকবছর আগে সমিতি একইভাবে বিভক্ত হয়ে পড়ার পর দীর্ঘদিন ধরে সমিতি মামলায় জড়িয়ে পড়েছিল। এর ফলে সমিতির কার্যক্রম প্রায় শুণ্যে পৌছায়। তবে প্রায় চার বছর আগে এই দ্বিধা-বিভক্তি ত্যাগ করে সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে চট্টগ্রাম সমিতির কাযক্রম শুরু হওয়ার পর আবার সেই পুরানো জায়গায় ফিরে যাওয়ার অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

এর আগে দ্বিবার্ষিক নির্বাচন ঘিরে সমিতির নেতারা দুই আগে বিভক্ত হয়ে যায়। নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দি¦তাকারী দুই প্যানেলের মধ্যে জিয়া-সেলিম প্যানেল এবং জাহাঙ্গীর-বিল্লাহ প্যানেল দুটি নির্বাচনে অংশ নেয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত জাহাঙ্গীর-বিল্লাহ’ প্যানেল নির্বাচনের ভোটে অংশ নেয়নি।

এই নির্বাচনকে ঘিরে একটি প্যানেল ও নির্বাচন কমিশন মামলায় জড়িয়ে পড়ে তবে শেষ পর্যন্ত আদালত নির্বাচনের নির্দেশ দিলে নির্বাচন কমিশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত করে। তবে এর আগেই জাহাঙ্গীর-বিল্লাহ প্যানেল নির্বাচন বর্জন করে। ফলে ৩ হাজার ২৪ ভোটার নিবন্ধিত থাকলেও ভোট দিয়েছেন মাত্র ৯১৫ জন।

এদিকে নির্বাচন কমিশন জানায়,রোববার সকল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত বিরতিহীন ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। মুল কেন্দ্র ব্রুকলীন ছাড়াও জ্যাকসন হাইটস, কানেকটিকাট ও নিউজার্সীর সাউথ জার্সী কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ করা হয়। ভোট গ্রহণ শেষে মুল কেন্দ্র থেকে রাত সাড়ে ৯টার দিকে নির্বাচন কমিশন আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষনা করেন। নির্বাচনে সভাপতি পদে আব্দুল হাই জিয়া ৮৬২ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হন। তার একমাত্র  প্রতিদ্বন্দ্বি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম পান ৩২ ভোট। অপরদিকে মোহাম্মদ সেলিম ৮৫২ ভোট পেয়ে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বি মোঃ মোক্তাদীর বিল্লাহ পেয়েছেন ২৭ ভোট।

ভোট গণনা শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হাজী খায়রুল বাসার জিয়া-সেলিম প্যানেলের বিজয়ীদের নাম ঘোষনা করেন। এসময় কমিশনের সদস্য  মাকসুদুল হক চৌধুরীসহ কমিশনের অন্যান্য সদস্য, সমিতির সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ হানিফ ও কাজী আজম, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরসহ শতাধিক প্রবাসী চট্টগ্রামবাসী উপস্থিত ছিলেন। পরে নবনির্বাচিত সভাপতি মোঃ আব্দুল হাই জিয়া ও নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক মোঃ সেলিম শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন।

নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণার পর জিয়া সেলিম পরিষদ পক্ষে আনন্দ-উল্লাস করা হয় ব্রুকলীনের কেন্দ্রের সামনে। সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ হানিফ এবং কাজী আজম, বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের সকলকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here