স্বাধীনতা দিবসে এলমহার্স্ট হাসপাতালে রক্তদান কর্মসূচী 

0
269

 

নিউইয়র্ক: বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস স্মরণে রবিবার নিউইয়র্কের বাঙ্গালী অধ্যুষিত এলাকা জ্যাকসন হাইটস্থ এলমহার্স্ট হাসপাতালে রক্তদান কর্মসূচী পালিত হয়। জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন-এর প্রস্তাবনায় নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল ও কংগ্রেস অব বাংলাদেশী আমেরিকানস ইন্ক এর যৌথ উদ্যোগে রক্তদান কর্মসূচী সফলভাবে সম্পন্ন হয়।

কংগ্রেস অব বাংলাদেশী আমেরিকানস ইন্ক-এর চেয়ারম্যান প্রকৌঃ মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কনসাল জেনারেল মোঃ শামীম আহসান।

অন্যান্য অতিথিবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কংগ্রেস অব বাংলাদেশী আমেরিকানস এর উপদেষ্টা ডঃ সিদ্দিকুর রহমান, কংগ্রেস অব বাংলাদেশী আমেরিকানস ইন্ক এর উপদেষ্টা ডঃ মহসিন আলী, ডঃ প্রদীপ রঞ্জন কর, মাসুদুল হাসান, লেখক-কলামিস্ট বেলাল বেগ, কংগ্রেসের পরিচালক এ্যাড. শাহ মোঃ বখতিয়ার আলী, রুমানা আক্তার, সাখাওয়াত বিশ্বাস, নূরুজ্জামান সর্দার, জাহাঙ্গীর এইচ মিয়া, গিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস, দুরুদ মিয়া রনেল, রফিকুল ইসলাম, রহিমুজ্জামান সুমন, পঙ্কজ দেবনাথ, শাকিল আহমেদ, সফিউল আলম, কবিতা সেন, উপস্থায়ী প্রতিনিধি তারেক আহমেদ, ডেপুটি কনসাল জেনারেল শাহেদ আহমেদ, ভাইস কনসাল আসিফ আহমেদ প্রমুখ।

রক্তদান কর্মসূচীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন কংগ্রেস অব বাংলাদেশী আমেরিকানস এর সেক্রেটারী জেনারেল মনজুর চৌধুরী ও ভাইস চেয়ারম্যান কাজী আজিজুল হক খোকন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বাদশা।

প্রধান অতিথির ভাষনে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বাংলাদেশী কমিউনিটিতে ব্যতিক্রমধর্মী এধরনের উদ্যোগকে ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতে রাস্তাঘাট পরিচ্ছন্ন করণ ও  স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক বিভিন্ন কর্মসূচী হাতে নেয়ার আহবান জানান। তিনি কংগ্রেস অব বাংলাদেশী আমেরিকান্স এর মত একটি অরাজনৈতিক সংগঠনের সেবামূলক কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতে আরও বেশী বেশী উদ্যোগ গ্রহনের আহবান জানান।

শামীম আহসান তাঁর বক্তব্যে বলেন, আমেরিকানদের রক্ত দিয়ে বাংলাদেশী কমিউনিটি একটি মেলবন্ধন সৃষ্টি করতে যাচ্ছে। আমি সত্যিই অভিভূত এ ধরনের উদ্যোগ নেয়ার জন্যে। আমি নিজে রক্ত দিয়ে নিজেকে এ কর্মসূচিতে শরীক হতে পেরে ধন্য মনে করছি।

কর্মসূচীতে মোট ৩৪জন ডোনার রক্তদান করেন এবং ২৪জন প্রাথমিক পরীক্ষায় অকৃতকার্য্য হওয়ায় রক্তদান করতে পারেননি। উপস্থিত অনেকেই শারীরিক অসুস্থতা ও বয়সের কারণে রক্তদান করতে সমর্থ হননি। সকাল ১০টা থেকে শুরু করে একটানা বেলা ৩টা পর্যন্ত বিরামহীনভাবে রক্তদান কর্মসূচী পালিত হয়।

পরে জাতিসংঘের বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে সকল ডোনারদের মাঝে রাষ্ট্রদূতের পক্ষ থেকে সনদপত্র বিতরণ করা হয় এবং সকলকে মধ্যাহ্নভোজে আপ্যায়ন করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here