স্টেট ডিপার্টমেন্টের জরুরী নির্দেশ : ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের দুতাবাসে ভিসায় কড়াকড়ি

0
459


শাকিল আনোয়ার: প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইমিগ্রেশন নীতি অনুয়ায়ী সেক্রেটারী অব স্টেট রেক্স টিলারসন যুক্তলাস্ট্রে ভিসা প্রার্থীদের চুড়ান্ত নিরাপত্তা চেকিং করে ভিসা প্রদান করতে বিশ্বের দেশে দেশে আমিরিকান দূতাবাসগুলোকে নির্দেশ দিয়েছেন। ট্যুরিস্ট, বিজনেস ট্রাভেলার, এমন কি ইমিগ্রান্ট ভিসা প্রদানের ক্ষেত্রেও এই ইদেশ প্রযোগ্য হবে। জানা যায়, এই নির্দেশের অংশ হিসাবে ঢাকাস্থ আমেরিকান দুতাবাস এখন বাংলাদেশীদের জন্য আমেরিকার ভিসা প্রদানে তীব্র কড়াকড়ি আরোপ করেছে। বিশেষ করে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ট দেশ হিসাবে বাংলাদেশী ভিসা প্রার্থীদের নিরাপত্তা চেকিং ব্যাবস্থা একটু বেশীই পরিলক্ষিত হচ্ছে।
এদিকে নিউইয়র্ক টাইম জানিয়েছে, স্টেট ডিপার্টমেন্ট গত সপ্তাহে পৃথিবীর সব দেশে আমেরিকান দুতাবাসে এক জরুরী কেবল বার্তায় নির্দেশ দেয় যে, সব ধরণের ভিসার ক্ষেত্রে নিরাপত্তা চেকিং ব্যাবস্থা জোরদার করতে হবে। বিশ্বেও দেশে আমেরিকান দুতাবাসের কনস্যুলার ডিপার্টমেন্টকে উদ্দেশ্য কওে এই আদেশে আমেরিকায় আসতে চাওয়া ব্যক্তিদের এই নির্দেশ অনুযায়ী বিশেষভাবে নিরাপত্তা চেকিং করতে হবে। তবে সব দেশের আমেরিকান দূতাবাসে এই নির্দেশ পাঠানো হলেও, ইউরোপসহ অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার জন্য তা কিছুটা শিথিল করা হবে বলে জানানো হয়েছে। উল্লেখ্য ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্র টুরিস্ট্যদের জন্য এক কোটিও বেশী ভিসা ইস্যু করেছিল।
প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০ জানুয়ারী দায়িত্ব গ্রহনের পর প্রথম দফায় তাঁর নির্বাহী আদেশে ৭টি মুসলিম অধ্যুষিত দেশের মানুষদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ সাময়িক নিষিদ্ধ ঘোষনা করেন। পরে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সেই নির্বাহী আদেশ সংশোধন করে ৬টি দেশের ওপর কার্যকর করে স্বাক্ষর করে তার বিরুদ্ধেও ফেডারেল কোর্টে মামলা করা হয়। ফলে সে আদেশ স্থগিত হয়ে যায়।
এর পরপরই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও তার নিরাপত্তা কর্মকর্তারা যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে চুড়ান্ত কড়াকড়ির লক্ষ্যে অফিসিয়াল সিদ্ধান্ত গ্রহন করে। এরপর সেক্রেটাারী অব স্টেট এই নির্দেশ পাঠালেন গত ১০ থেকে ১৭ মার্চের মধ্যে।
নতুন বাড়তি কড়াকড়ি ও নিরাপত্তা বিষয়ক তদন্তের জন্য ভিসা আবেদনকারীকে অতিরিক্ত প্রশ্ন করা হয়। অতীত নিয়ে বিস্তারিত জানতে চাওয়া হচ্ছে, সোশ্যাল মিডিয়াতে বিশেষ করে ফেসবুকের একাউন্ট দেখা হচ্ছে, ইমেইলের ইতিহাসও ঘাটাঘাটি করা হচ্ছে। অতীতে জঙ্গি আক্রমন হয়েছে, সেইসব দেশের আবেদনকারীদের সম্পর্কে দুতাবাসগুলো বেশি সতর্কতা অবলম্ব করছে। সেই হিসাবে বাংলাদেশীদেও ভিসা ইস্যুতে কঠোরতা চূড়ান্ত রূপ নিয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশ থেকে ভিসা ইস্যুর সংখ্যাও কমে গেছে।
স্টেট ডিপার্টমেন্টের এই নির্দেশের প্রেক্ষিতে কনস্যুলার কর্মকর্তা ইমিগ্রেশন এডভোকেটরা বলেছেন এর ফলে ভিসা আবেদনাকরীরা আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় পড়বেন, যাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই, এমন ব্যক্তিদের ভিসা প্রাপ্তি দীর্ঘসূত্রিতায় পড়তে পারে, আর সন্দেহভাজনদের তদন্ত প্রক্রিয়ায় পড়তে হতে পারে। ইমিগ্রেশন এডভোকেসি গ্রুপের কর্মকর্তারা আশংকা প্রকাশ করে বলেছেন, এর ফলে নির্দিষ্ট দেশের ও নির্দিষ্ট ধর্মের মানুষদের কেবল তাদের নাম ও ধর্মের কারণে টার্গেট করা হবে।
সেক্রেটারী অব স্টেট টিলারসন বলেছেন, কনস্যুলার অফিসাররা যেনে কোনো ব্যক্তি ভিসা প্রত্যাখ্যান করতে কোনো রকম দ্বিধা বা ইতস্তত না করেন। রয়টার জানায়, রেক্স টিলাসনের এই নির্দেশের প্রেক্ষিতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যে কথা বারবার বলে এসেছেন নির্বাচনী প্রচারণাকালে তারই প্রতিফলন ঘটলো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here